Trending Bangla Blogs

তেজপাতার চাষ কতটা লাভজনক ব্যবসা জেনে নিন বিস্তারিত !

37

তেজপাতার ব্যবহার বহু যুগ ধরেই হয়ে আসছে৷ তেজপাতার চাষ কতটা লাভজনক ব্যবসা জেনে নিন বিস্তারিতঃ   

ঔষধি গুন ও বিভিন্ন কারণে তেজপাতা জনপ্রিয় এবং এটি সহজলভ্যও৷ তাই তেজপাতার চাহিদার ওপর ভরসা করেই অনেকেই এই তেজপাতা চাষে ঝুকে পড়েছেন। তেজপাতার চাষ কতটা লাভজনক ব্যবসা খুঁটিনাটি জেনে চাষের পরিকল্পনা করতেই পারেন৷  

তেজপাতার বৈজ্ঞানিক নাম Cinnamomum tamala, এবং এই গাছটি মূলত ভারত, নেপাল, ভুটানে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়৷ এটি প্রায় ২০ মিটারেরও বেশি লম্বা হতে পারে৷ 

তেজপাতা রান্নায় স্বাদ বৃদ্ধিতে মশলা হিসেবে ব্যবহৃত হলেও, আমাদের শরীরকে নানা সমস্যা, রোগের হাত থেকে রক্ষা করতেও এর অবদান অনস্বীকার্য৷ এর থেকে বিভিন্ন ধরণের ওষুধও তৈরি করা হয়ে থাকে৷ তাই এর কদরও অনেক৷ এই তেজপাতা অরুচি দূর করতে, মাড়ির ক্ষত দূর করতে, ঘামাচি সারাতে, এমনই বিভিন্ন কাজে লাগে আমাদের। এর বাকল থেকে সুগন্ধি তেল প্রস্তুত করে তা সাবান তৈরিতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷

বলতে গেলে সমগ্র ভারতেই, নানা প্রান্তে এর কম বেশি চাষ হয়ে থাকে, তবে বিহার, কেরল, কর্ণাটক সহ সমগ্র উত্তর ভারতে পাহাড়ি এলাকায় এর বেশি চাষ হয়ে থাকে৷ 

তেজপাতা সব ধরণের জমিতেই চাষ করা সম্ভব, তবে ৬-৮ পিএইচ মানযুক্ত জমিতে এটি সবথেকে ভালোভাবে চাষ করা যেতে পারে ৷ এর চাষের আগে জমি তৈরি করে নিতে হবে৷ জমি পরিষ্কার করে, এতে প্রথমে জৈব সার প্রয়োগ করতে হবে। 

চারা রোপনের সময় প্রতিটি গাছের মাঝে ৪-৬ মিটার দূরত্ব রাখতে হবে৷ চাষের জমিতে যাতে পানি না জমে যায় তার ব্যবস্থা করতে হবে৷ সেই সাথে পোকা-মাকড়ের হাত থেকে একে রক্ষা করতে  হবে৷   

সেচকার্যের জন্য খুব বেশি পরিশ্রমের প্রয়োজন হয় না তেজপাতা চাষে৷ গ্রীষ্মের সময়ে সপ্তাহে সপ্তাহে জল দিতে হয়৷ বর্ষার সময়ে বৃষ্টি অনিয়মিত হলে তবেই জলসেচের প্রয়োজন হয়৷

প্রায় ৬ বছর সময় লাগে এই গাছ বেড়ে উঠতে৷ সঠিকভাবে তেজপাতা চাষ করতে পারলে এই তেজপাতা আপনাকে প্রচুর পরিমানে উপার্জনের সুযোগ করে দিবে৷ 

Comments are closed.